যৌনকর্মীদের ২০ ভাগের বয়স ১০-১৬ | jamunanews24.com

যমুনা নিউজ: দেশের বিভিন্ন পতিতালয়ে অবস্থান করা এবং ভাসমান যৌন...

বাংলা  
 জাতীয়
যৌনকর্মীদের ২০ ভাগের বয়স ১০-১৬
Published : Tuesday, 29 November, 2016 at 11:26 PM,  Read :  18  times.
যৌনকর্মীদের ২০ ভাগের বয়স ১০-১৬যমুনা নিউজ: দেশের বিভিন্ন পতিতালয়ে অবস্থান করা এবং ভাসমান যৌনকর্মীদের বেশির ভাগেরই বয়স ১০ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। শতকরা ৯০জন অভাবের তাড়নায় শিশুকালেই এই পেশায় জড়িয়ে পড়েন।

মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এমএম আমানউল্লাহার উপস্থাপিত এবং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন কর্তৃক পরিচালিত “যৌনকর্মীর মানবাধিকার: যৌনপল্লী উচ্ছেদের মনোসামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব” শীর্ষক একটি গবেষণা পত্রে এসব তথ্য উল্লেখ করা হয়।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশানের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনামের সভাপতিত্বে গবেষণা পত্র উপস্থাপন ও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন, সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নূরুজ্জামান আহমেদ, আইন ও শালিস কেন্দ্রের সিনিয়র ডেপুটি ডিরেক্টর মীনা গোস্বামী, সাংবাদিক, যৌন কর্মীদের দু’জন প্রতিনিধিসহ আরো অনেকে।

গবেষণায় আরো উল্লেখ করা হয়, দেশের ৫৩শতাংশ যৌনপল্লী ভূমি দখলের উদ্দেশ্যেই উচ্ছেদ করা হয়। এ সময় ৯০ শতাংশ যৌনকর্মী সহিংসতার শিকার হয়। উচ্ছেদের পর যৌনকর্মীরা ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে।

গভেষণা পত্রে বলা হয়, কোথাও বিকল্প কোন কাজকর্ম না পাওয়ায় এবং অর্থনৈতিক সঙ্কটে পড়ে প্রায় ৬৩ শতাংশ যৌনকর্মী বেঁচে থাকার তাগিদে এই পেশায় আসে।তারা সাধারণত বিভিন্ন পার্ক, রাস্তাঘাট, স্টেশন, ভাড়া করা বাসায় অথবা হোটেলে অবস্থান করে।

সম্প্রতি বিভিন্নভাবে সারা দেশ থেকে ভূমি দখলের উদ্দেশ্যে যৌনপল্লিগুলো উচ্ছেদের ঘটনা ঘটছে।উচ্ছেদেরে পর সরকার, দাতা সংস্থা, কোন এনজিওদের পক্ষ থেকে কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

গবেষণায় উল্লেখ করা হয়, শতকরা ৯১জন যৌনকর্মী সমাজের মূলধারার মানুষ এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ভয়াবহ রকমের সামাজিক বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন।তাদের অনেকেই নাগরিক সুবিধা থেকেও বঞ্চিত।

পারিবারিক ও সামাজিক বৈষম্যের কারণে অনেকে এই পেশা থেকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারছেন না। আবার তাদের শারিরীক গঠনের পরিবর্তন এবং মানসিক ট্রমার কারণে কোন প্রতিষ্ঠানে কাজ করাতেও পারেন না তারা।

স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা, চাঁদাবাজ ও ভূমি দখলদারাদের একটি চক্র যৌনপল্লী উচ্ছেদের ব্যাপারে মূল ভূমিকা পালন করছে।রাজনৈতিক দুর্বৃত্ত, পুলিশ এবং মাসী ও দালালরা এই জগতের নিয়ন্ত্রক বলেও উল্লেখ করা হয়।

সারা দেশের ভাসমান এবং যৌনপল্লিগুলোতে চালানো এই গবেষণায় আরো উল্লেখ করা হয়, দেশে মোট যৌনকর্মীর সংখ্যা ৭ হাজার ৫০০ থেকে ৮ হাজারের মতো।যাদের খদ্দেরের সংখ্যা গোটা দেশে প্রায় দেড় থেকে দুই লাখ। প্রতিজনের দৈনিক আয় দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা।

এসব যৌনকর্মী অনিরাপদ যৌনকর্মে যেমন লিপ্ত তেমনি তারা গরুমোটা তাজাকরণের ওষুধ সেবন করার মধ্যমে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকে।

অনুষ্ঠানে বক্তারা যৌনকর্মীদেরকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি এবং তাদের সধ্যে যারা স্বাভাবিক জীবনে আসতে চায়, তাদের পুর্নর্বাসনে সরকারকে এগিয়ে আসার দাবি জানান।কাউকে যেন এই পেশায় জোর করে আনা না হয় সে ব্যাপারেও সরকারকে নজরদারির আহ্বান জানানো হয়।

jamunanews24.com/Tofazzal/momin/29 November 2016

� পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ �