রিজার্ভ চুরি: ক্ষতিপূরণ দেবে ... | jamunanews24.com

যমুনা নিউজ: বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন ডলার রিজার্ভ চুরির ঘট...

বাংলা  
 আন্তর্জাতিক
রিজার্ভ চুরি: ক্ষতিপূরণ দেবে না আরসিবিসি
Published : Tuesday, 29 November, 2016 at 4:59 PM,  Read :  50  times.
রিজার্ভ চুরি: ক্ষতিপূরণ দেবে না আরসিবিসিযমুনা নিউজ: বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন ডলার রিজার্ভ চুরির ঘটনায় নিজেদের দায়বদ্ধতাকে আবারও অস্বীকার করেছে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্সিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশন (আরসিবিসি)। মঙ্গলবার ব্যাংকটি বলেছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের অবহেলার কারণেই চুরির ঘটনা ঘটেছে। তারা এ ঘটনায় দায়দায়িত্ব নিতে পারে না এবং কোনো ক্ষতিপূরণও দেবে না।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়, আরসিবিসির আইনজীবী থে দায়েপ বাংলাদেশ ব্যাংককে স্বচ্ছ হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন। পাশাপাশি চুরির পেছনে কারা রয়েছে তা প্রকাশ করতে বাংলাদেশ ব্যাংককের নিজস্ব তদন্তের ফল প্রকাশের অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকই এর পেছনে থাকতে পারে।’

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, আরসিবিসি চুরির ঘটনায় প্রত্যক্ষভাবে দায়ী নয়। স্থানীয় ঋণদাতা বাংলাদেশ ব্যাংককে ক্ষতিপূরণ হিসেবে কোনো অর্থ পরিশোধ করবে না।

তিনি বলেন, ‘তারা আমাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করেনি। বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্ষেত্রেই অবহেলা ছিল।’

এবিএস-সিবিএনের খবরে বলা হয়, ব্যাংকটি ফিলিপাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত জন গোমেজের সমালোচনা করেছে। অভিযোগ করা হয়েছে, গোমেজ অর্থ উদ্ধারে সেদেশের সরকারের ওপর চাপ দিতে মিডিয়াকে ‘অন্যায়ভাবে’ ব্যবহার করছে।

একটি সংবাদপত্রে জন গোমেজের উদ্বৃতি দিয়ে বলা হয়, তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ সরকার আরসিবিসির কাছে ক্ষতিপূরণ চাবে। এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি তাতে সাড়া দেননি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

দায়েপ বলেন, আরসিবিসি অত্যন্ত সুরক্ষিত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তিনটি স্তর অতিক্রম করার পর অর্থ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের উদ্বৃত করে অসংখ্য প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে এবং ব্যাংলাদেশ ব্যাংকের নিজম্ব তদন্তে প্রাথমিকভাবে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে যে, বাংলাদেশ ব্যাংকের ভেতর থেকেই চুরিতে সাহায্য করা হয়েছে। এর অল্প সময় পরই বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের তদন্ত প্রতিবেদন নিষ্ফল করার সিদ্ধান্ত নেয়, যা অনেক প্রশ্ন তুলেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সুভঙ্কর সাহা রয়টার্সকে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক ও নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক উভয়ের পক্ষ থেকেই অর্থ স্থানান্তর স্থগিত করতে আরসিবিসিকে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। কিন্তু আরসিবিসি তা বাস্তবায়ন করেনি।

তিনি বলেন, আরসিবিসির নগদ পরিশোধ করার ঘটনা ছিল অস্বাভাবিক। এ ছাড়া স্থানান্তরের পদ্ধতিও ছিল অস্বচ্ছ। সুতরাং সব কিছুই প্রশ্নবিদ্ধ।

ফিলিপাইনে ৮১ মিলিয়ন রিজার্ভের মধ্যে মাত্র ১৫ মিলিয়ন ডলার উদ্ধার করা হয়েছে, যা ইতোমধ্যে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া আরও ২.৭ মিলিয়ন ডলার জব্দ করা হয়েছে।

এদিকে, রিজার্ভের বাকি অর্থ উদ্ধার প্রক্রিয়া জোরদার করতে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধি দল বর্তমানে ম্যানিলায় অবস্থান করছে। তারা সেদেশের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবে।

ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ বাংকে বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়া পেমেন্ট বার্তার মাধ্যমে ৮১ মিলিয়ন ডলার স্থানান্তর করে অজ্ঞাত হ্যাকাররা। এ অর্থ স্থানান্তরে আরসিবিসিকে চ্যানেল হিসেবে ব্যবহরা করা হয়। ব্যাংকটি হয়ে দেশটির ক্যাসিনোতে চুরির অর্থ স্থানান্তর করা হয়। যার বেশিরভাগের এখনও হদিস মেলেনি।

jamunanews24.com/momin/Roushan/28 November 2016

� পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ �